মসজিদের সামনে নওমুসলিম ইমামকে হত্যা

0

 

মসজিদের সামনে নওমুসলিম ইমামকে হত্যা

মসজিদের সামনে নওমুসলিম ইমামকে হত্যা

প্রথমেই শুরু করছি কিছু দৈনিক পত্রিকার নিউজ নিয়ে । তারপর আমরা বিষয়টা নিয়ে বিশ্লেষণ করবো ইনশাল্লাহ ।

মসজিদের সামনে ইমামকে গুলি করে হত্যা

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলায় মোহাম্মদ ওমর ফারুক (৪৫) নামে এক নওমুসলিম ইমামকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে মসজিদের সামনে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে । শুক্রবার (১৮ জুন) রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার আলেক্ষ্যং ইউনিয়নের তুলা ঝিড়ি পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। গণমাধ্যমকে এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তৌহিদ কবির।

ওসি তৌহিদ বলেন, যেখানে হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে সেটি থানা থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে ও দুর্গম। পায়ে হাটা পথে সেখানে যেতে হবে। সেনাবাহিনীর লংলাই সেনা ক্যাম্পের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। আমরাও রওনা দিয়েছি। কী কারণে এ ঘটনা সংগঠিত হয়েছে তা এখনই ধারণা করা যাচ্ছে না।

জানা গেছে, নিহত ফারুক নওমুসলিম ছিলেন। তিনি ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের একজন সদস্য ছিলেন। এরপর কয়েক বছর আগে ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেন তিনি। তুলাঝিড়িতে অস্থায়ী একটি মসজিদে ইমামতির দায়িত্ব পালন করতেন।

সুত্র : কালের কণ্ঠ ।

আরেকটি নিউজ ।

বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে ওমর ফারুক (৫৪) নামে একজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। শুক্রবার বিকালে  রোয়াংছড়ি উপজেলার রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের তুলাছড়ি আগা পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে পুলিশ এবং সেনাবাহিনী ঘটনাস্থলের দিকে রওনা হয়েছেন। দুর্গম ও বৃষ্টি কারণে ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে সময় লাগছে বলে জানা গেছে।

নিহত ওমর ফারুক  রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের তুলাছড়ি আগা পাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি নওমুসলিম। তার জন্মগত নাম পূর্ণচন্দ্র ত্রিপুরা। পিতার নাম তয়ারাম ত্রিপুরা।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের তুলাছড়ি আগা পাড়া এলাকায় মসজিদে নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার সময় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে ত্রিপুরা থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম' হওয়া ওমর ফারুককে।

স্থানীয়দের দাবী, ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর হয়েও খ্রিস্টান ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী একটি গ্রুপ তাকে দীর্ঘদিন ধরে হুমকি দিয়ে আসছিল। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র শাখার ক্যাডাররা জড়িত।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রোয়াংছড়ি থানার ওসি তৌহিদ কবির জানান, সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা একজনকে গুলি করে হত্যার খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর সদস্যরা গেছেন। লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হবে। হত্যাকাণ্ডের সাথে কারা জড়িত বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি

সুত্র : দৈনিক যুগান্তর ।

এবার আমরা একটু বিশ্লেষণ করি । একজন ব্যাক্তি সর্বদা যে কোনো ধর্ম পালনে স্বাধীন । তার সেই স্বাধীনতা রাষ্ট্র দিয়েছে । বাংলাদেশ সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগের ১২ নম্বরে রয়েছে , ধর্ম নিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতা । এই ভাগের শেষাংশে বলা হয়েছে ,” কোনো বিশেষ ধর্ম পালনকারী ব্যাক্তির প্রতি বৈষম্য বা তাহার উপর নিপীড়ন , বিলোপ করা হইবে । “অর্থাৎ তার প্রতি কোনো প্রকার জোরজবরদস্তি করা যাবে না । বাংলাদেশে মুসলমানদের বসবাস প্রায় ৭৫% । এই দেশে অন্যান্য ধর্মের অধিবাসীরা খুব শান্তিতে থাকে । তাই তারা মাঝের মধ্যে খুব বেশি পরিমাণ উশৃঙ্খল । অন্যান্য দেশে যে ধর্মের লোকেরা কম , তারা মনে হয় যেন জাহান্নামে বসবাস করছে ।

একজন ব্যাক্তি যখন সেচ্ছায় তার ধর্ম ত্যাগ করে অন্য ধর্ম গ্রহন করে তখন এটা বুঝা যায় , সে বুঝেশুনে এবং রিচার্চ করে ভিন্ন ধর্ম গ্রহন করেছে । এই নওমুসলিম ওমর ফারুক রহ. তো সেচ্ছায় মুসলমান হয়েছিলেন । দৈনিক যুগান্তরের তথ্য অনুযায়ী , তিনি পূর্বে খৃষ্টান ধর্মের অন্তর্ভূক্ত ছিলেন । এই খৃষ্টান মিশনারীগুলো বিভিন্ন দেশে টাকার বিনিময়ে নিজ ধর্ম ত্যাগ করে । বাংলাদেশের পঞ্চগড় জেলা , পার্বত্য চট্টগ্রামের দিকে মানুষ ৫০০ টাকা ৫০০০ টাকার বিনিময়ে খৃষ্টান ধর্ম গ্রহন করছে । তারা মানুষকে বিভ্রান্ত করে বলে , আমরা ঈসায়ী মুসলমান । নাউযুবিল্লাহ ।

আমাদের সরকারের প্রতি উদাত্ত আহবান থাকবে , অবিলম্বে শহীদ ওমর ফারুক রহ. বিচার করুন । অন্যথায় এ দেশের মুসলমানরা জানে , কিভাবে তার বিচার চাইতে হবে ?

আর পাহাড়ীদের অস্ত্র ব্যবহার নিষিদ্ধ করুন । অন্যথায় অদূর ভবিষ্যতে এই বাংলাও এই পাহাড়ী খৃষ্টানরা ভাগ করে ফেলবে । সেখানে সেনাবাহিনীর ঘাটি তৈরী করে রাখুন । আসন্ন বিপদ মোকাবেলায় সবাইকেই এগিয়ে যেতে হবে ।

 

আব্দুর রহমান আল হাসান 

আলোচক , এআর ইসলামিক অল টিপস

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)

#buttons=(আমি সম্মত !) #days=(20)

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি আপনি ভালো আছেন। আমার সম্পর্কে আরো জানুনLearn More
Accept !